সোমবার ০১ জুন ২০২০

১৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ই-পেপার

স্পোর্টস ডেস্ক

এপ্রিল ২১,২০২০, ১০:১৩

এপ্রিল ২১,২০২০, ১০:১৩

‘বড় মানুষ হওয়াটাই গুরুত্বপূর্ণ’, নাজমুলকে নিয়ে তামিম

 

নিজে উদ্যোগ নিয়ে নারায়ণগঞ্জের অসহায় মানুষের দুয়ারে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপু। তাকে প্রশংসায় ভাসিয়ে বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল বলেছেন, অনেক সময়ই আমাদেরকে বিচার করা হয় শুধু ক্রিকেট দিয়ে। অপু দেখিয়ে দিচ্ছে, মানুষ হিসেবে বড় হওয়াটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ!

মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেইসবুকে একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, “ছবিতে নিজ হাতে চাল মেপে দিচ্ছেন যিনি, মানুষটিকে আপনারা অনেকেই চেনেন। মাঠে তার সেলিব্রেশন আপনাদের আনন্দ দিয়েছে অনেক সময়। এখন সে কাজ করে চলেছে অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে। জাতীয় ক্রিকেটার নাজমুল ইসলাম অপু।

নারায়ণগঞ্জে করোনার এই ক্রান্তিকাল শুরুর সময় থেকেই অপু নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে। নিজে যতটুকু পেরেছে ও অন্যদের সহায়তা নিয়ে দিনের পর দিন দুঃস্থদের খাদ্য সহায়তা দিয়ে চলেছে। আমি সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি ওকে সহায়তা করার। আরও অনেকে করেছেন। এই প্রবল দুর্যোগের সময় দেশজুড়ে আরও অসংখ্য মানুষ এভাবে অসহায়দের পাশে দাঁড়িয়েছে আজ। অপুর যে দিকটি আমার খুব ভালো লেগেছে, সে উদ্যোগ নিয়েছে তো বটেই, নিজেই সবকিছু জোগাড় করে, মেপে, প্যাকেট করে, মানুষের দুয়ারে পৌঁছে দিচ্ছে। একবার-দুবার নয়, বারবার। একজন জাতীয় ক্রিকেটার যখন এভাবে মানবসেবায় ঝাঁপিয়ে পড়েন, সমাজকে তা খুব ভালো বার্তা দেয়।

অনেক সময়ই আমাদেরকে বিচার করা হয় শুধু ক্রিকেট দিয়ে। অপু দেখিয়ে দিচ্ছে, মানুষ হিসেবে বড় হওয়াটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ!”

বাংলাদেশের হয়ে ১টি টেস্ট, ৫টি ওয়ানডে ও ১৩ টি-টোয়েন্টি খেলেছেন নাজমুল। ২৮ বছর বয়সী স্পিনার অনেক দিন ধরেই আছেন জাতীয় দলের বাইরে।

করোনাভাইরাস মহামারিতে সংকটময় সময়ে দেশের ক্রিকেটাররা অবশ্য সহায়তা নিয়ে এগিয়ে এসেছেন শুরুতেই। বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তি ও সাম্প্রতিক সময়ে জাতীয় দলে খেলা ২৭ ক্রিকেটার দান করেন এক মাসের বেতনের অর্ধেক টাকা। প্রথম শ্রেণির চুক্তিতে থাকা ৯১ ক্রিকেটারও দান করেন মাসিক বেতনের অর্ধেক টাকা। সামর্থ্য অনুযায়ী কোয়াবের তহবিলে দান করেছেন যুব বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেটাররাও। এছাড়া অনেক ক্রিকেটার ব্যক্তিগত উদ্যোগেও চালিয়েছেন সহায়তা কার্যক্রম। মুশফিক নিজ শহর বগুড়ার সদর হাসপাতালে দিয়েছেন ২০০ পিপিই, মাস্ক ও গ্লাভস। প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির ব্যাটের সঙ্গে আরও কিছু স্মারক নিলামে তুলতে যাচ্ছেন এই ব্যাটসম্যান।

তামিমও এই দুঃসময়ে সহায়তা করে চলেছেন অনেক। নাজমুলের এই উদ্যোগে তিনি সহায়তা করেছেন দুই দফায়। জাতীয় জুনিয়র অ্যাথলেটিকসের দ্রুততম মানব সামিউল ইসলামের মানবেতর দিন কাটানোর খবর পত্রিকায় পড়ে কয়েক মাসের খাদ্য সহায়তা করেছেন তার পরিবারকে।

মাশরাফি বিন মুর্তজার পরামর্শে জাতীয় ক্রিকেটারদের বেতন থেকে তহবিল গড়ার সমন্বয়ও করেছেন তামিম। দলের অন্য চার ক্রিকেটারের সঙ্গে মিলে আর্থিক সহায়তা করেছেন টিম বয়দের।

আমারসংবাদ/জেআই