বৃহস্পতিবার ০৪ জুন ২০২০

২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ই-পেপার

আসাদুজ্জামান আজম

প্রিন্ট সংস্করণ

এপ্রিল ০৫,২০২০, ১২:৫০

এপ্রিল ০৫,২০২০, ১২:৫০

পিছিয়ে গেলো প্রাথমিকের টিভি ক্লাস

পূর্ব নির্ধারিত সময়ে সংসদ টিভিতে শুরু হচ্ছে না প্রাথমিকের ক্লাস সম্প্রচার। স্টুডিও এবং টেকনিশিয়ান না পাওয়ায় সময়মতো ক্লাস রেকর্ডিং করতে পারেনি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)।

তবে আগামী ৭ এপ্রিল মঙ্গলবার থেকে তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণির ক্লাস সমপ্রচার করা হবে। প্রতিদিন প্রতিটি শ্রেণির দুটি ক্লাস প্রচারিত হবে। ক্লাসের ব্যপ্তি হবে ২০ মিনিট। সংসদ টিভিতে চলমান মাধ্যমিকের সঙ্গে প্রাথমিকের ক্লাস প্রচারের সমন্বয়ের অভাব দেখা যাচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব জানা গেছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম আল হোসেন বলেন, মাধ্যমিকে ক্লাস চলায় সংসদ টিভিতে সিডিউল এবং স্টুডিও, ক্যামেরাপারসন ও টেকনিশিয়ান পেতে একটু সমস্যা হওয়ায় ৫ এপ্রিলের পরিবর্তে ৭ এপ্রিল মঙ্গলবার থেকে প্রাথমিকের ক্লাসগুলো প্রচার শুরু হবে।

ডিপিই সূত্র মতে, করোনা ভাইরাসের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া চালিয়ে নিতে সংসদ টিভির মাধ্যমে ক্লাস চালু রাখার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

প্রতিদিন প্রতিটি শ্রেণির দুটি বিষয়ের ভিডিও ধারণ করা ক্লাস সংসদ টিভির মাধ্যমে সম্প্রচার করা হবে। অভিজ্ঞ শিক্ষকদের মাধ্যমে ক্লাস রেকর্ডিং করতে মন্ত্রণালয় থেকে একটি তালিকা করে দেয়া হয়।

গত বৃহস্পতিরবার থেকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজের স্টুডিওতে রেকডিংয়ের কাজ শুরু হয়। শনিবার থেকে বাংলাদেশ শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরোতেও (ব্যানবেইস) রেকর্ডিং চলছে। এতে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকও সহযোগিতা করছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের ভয়ে ডিপির কর্মকর্তারও রেকর্ডিং করাতে ভয় পাচ্ছিলেন। তবে মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আকরাম-আল হোসেন, ডিপিই মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ ও এডিজি আ. মান্নানের উদ্যোগে রেকর্ডিং কার্যক্রম শুরু হয়। প্রথম দিন তালিকাভুক্ত মাত্র চারজন শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন।

তারা হলেন— রাজধানীর মোহাম্মদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক খায়রুন নাহার লিপি, রাজধানীর অন্য স্কুলের শিক্ষক দেবজানি দত্ত, ফিরোজ আলম ও মনির হোসেন।

জানতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ বলেন, ৭ এপ্রিল থেকে সংসদ টিভির মাধ্যমে তৃতীয় শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণির ক্ল্লাস শুরু হবে। বেলা ২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত ক্লাস চলবে।

মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন আগেই দিয়ে দেয়ায় আমাদের বিকেলে ক্লাস শুরু করতে হচ্ছে। পরের সপ্তাহে (শনিবার) সকাল ৯টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত ক্লাস চলবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এভাবেই ক্লাস নেয়া হবে।

অভিযোগ রয়েছে, ওই চারজন শিক্ষককে দেখাদেখি তালিকাভুক্ত রাজধানীর অন্যান্য স্কুলের শিক্ষকরাও রেকর্ডিংয়ে অংশ নেন। কিন্তু রাজধানীর অভিজ্ঞ শিক্ষকদের বসিয়ে রেখে রেকর্ডিং কাজে জড়িত না থাকলেও ডিপিইর একজন পরিচালক এবং প্রেষণে কর্মরত একজন শিক্ষা কর্মকর্তা গাজীপুর জেলা থেকে তিনজন শিক্ষককে হায়ার করে নিয়ে আসেন।

ঢাকার শিক্ষককের বাসায় পৌঁছানের ব্যবস্থা করা হচ্ছে না। অথচ ডিপিইর গাড়ি দিয়ে গাজীপুর থেকে নিয়মিত আনা-নেয়া করা হচ্ছে ওই তিন শিক্ষককে। এছাড়া রেকর্ডিংয়ের মান নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

সংশ্লিদের অভিযোগ, দক্ষ শিক্ষকদের সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বসিয়ে রেখে কর্মকর্তাদের পছন্দের অদক্ষ শিক্ষকদের দিয়ে ক্লাস রেকর্ডিং করা হচ্ছে।

তারা উদাহরণ দিয়ে বলেন, তৃতীয় শ্রেণির বিজ্ঞান বিষয়ের তৃতীয় অধ্যায় একজন শিক্ষকেরই পড়ানোর কথা। কিন্তু সেখানে কয়েকজন শিক্ষকের পাঠদান রেকর্ডিং করা হচ্ছে। রেকর্ডিংয়ে সমন্বয়হীনতারও অভিযোগ করেছেন তারা। সব মিলিয়ে দায়সারা রেকর্ডিং চলছে। এতে সরকারের মূল উদ্দেশ্য ভেস্তে যাবে বলে তারা আশঙ্কা করছেন।

সমন্বয়হীনতার বিষয়ে জানতে চাইলে ডিপিই ডিজি মো. ফসিউল্লাহ বলেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায় কিছু সমস্যা আছে। চ্যালেঞ্জ নিয়েই কাজ চলছে। সমস্যা থাকবে না।

বাজেটের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত কোনো বাজেট করা হয়নি। একটা খসড়া বাজেট তৈরি করা হয়েছে। তা খুবই নগণ্য। শিক্ষকদের খাওয়া, যাতায়াতের খরচ বাবদ প্রতিদিন ১০-১৫ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে।

টেকনিশিয়ানদের পারিশ্রমিক এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। সব মিলিয়ে ক্লাস প্রতি ২০-২২ হাজার টাকার বেশি খরচ হবে না। এখানে কাউকে ব্যবসা করতে দেয়া হবে না।

আমারসংবাদ/এসটিএমএ