শুক্রবার ২৯ মে ২০২০

১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ই-পেপার

নিজস্ব প্রতিবেদক

এপ্রিল ১৯,২০২০, ০৯:১৮

এপ্রিল ১৯,২০২০, ০৯:১৮

করোনায় গুজব ঠেকাতে ‘স্টপ করোনা’ অ্যাপ

 

পুরো বিশ্ব জুড়ে এক মূর্তিমান আতঙ্কের নাম নোভেল করোনা ভাইরাস। ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে প্রথম করোনা ভাইরাসের সংক্রামণ দেখা দেয়। করোনার ভয়াল থাবায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে উহান প্রদেশ। এরপর ধীরে ধীরে উহানে করোনার প্রকোপ কমলেও বিপত্তি বাঁধে তখন যখন এটি উহান থেকে ছড়িয়ে পড়ে সমগ্র পৃথিবীতে। এই পর্যন্ত পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের প্রায় প্রায় তেইশ লক্ষাধিক মানুষ আক্রান্ত হয়েছে মরণঘাতী এই ভাইরাসে এবং আজ অবধি প্রায় দেড় লাখ কে গুনতে হয়েছে মৃত্যুর পরোয়ানা। করানোর ভয়াল থাবা থেকে বাদ যায়নি বাংলাদেশও। নানাবিধ অসতর্কতা আর যথাযথ পদক্ষেপের অভাবে এটি ছড়িয়ে পড়েছে পুরো দেশব্যাপী। সমস্যার সৃষ্টি হয় যখন দেশের কিছু অতি উৎসাহী মানুষ এই ভাইরাস কে কেন্দ্র করে তৈরি করে অনেক গুজব যার ফলে তৈরি হয়েছে অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি। সেই সাথে এসব গুজব কে প্রাধান্য দিয়ে ভাইরাস মোকাবেলার গুরুত্ব ও হারিয়ে ফেলেছে মানুষ। এই পরিস্থিতিতে মানুষকে সঠিক তথ্য দিয়ে সাহায্য করতে এবং সচেতনতা তৈরি করতে স্টপ করোনা নামে একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করেছে দুই বাংলাদেশের দুই শিক্ষার্থী।

যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারিলনিয়ার অ্যাপালাশিয়ান স্টেইট বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সাইন্সের শিক্ষার্থী মোঃ জুবায়ের হোসেন এবং রাজধানীর আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এর কম্পিউটার সাইন্সে পড়ুয়া শিক্ষার্থী মোঃ জাওয়াদুল হাসান এই জনসেবামূলক অ্যাপটি তৈরি করেছেন।

আলাপচারিতায় তারা বলেন, আমরা এই অ্যাপের মাধ্যমে সাধারন মানুষকে সচেতন করতে পারব। আমরা ডাক্তারদের নিয়ে একটি নেটওয়ার্ক তৈরি করেছি যার মাধ্যমে অ্যাপ ব্যবহারকারীদের তাৎক্ষনিক সেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছে।

এছাড়াও ইউসারের দেয়া তথ্য অনুযায়ী গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করে ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা নির্ণয় করা যাবে। শুধু তাই নয়, জরুরি যোগাযোগের জন্য ফোন নাম্বার এবং ভাইরাস পরীক্ষা করার ঠিকানাও পাওয়া যাবে এই অ্যাপে।

এর পাশাপাশি বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ পরিস্থিতি, আক্রান্ত এলাকা এবং লাইভ ড্যাশবোর্ড এর মাধ্যমে পুরো পৃথিবীতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের বর্তমান পরিসংখ্যান, কোয়ারেন্টাইনকৃত, সংক্রমিত, আরোগ্যপ্রাপ্ত এবং মৃত মানুষের সংখ্যা জানা যাবে। তাছাড়াও বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত খবর, করোনা ভাইরাসের কারণ, প্রতিরোধ এবং প্রতিকারের উপায়, করোনা ভাইরাস নিয়ে প্রচলিত ভূল ধারণা এবং সঠিক ধারণা, রোগ প্রতিরোধে খাদ্যাভ্যাস, হোম কোয়ারেন্টাইন, আইসোলেশন, লকডাউন সম্পর্কেও জানা যাবে এই অ্যাপটি থেকে।

শুধু তাই নয় বরং চাইলে ত্রান তহবিলে সাহায্য প্রদানও করা যাবে। এছাড়াও কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করার জন্য পুলিশের সহয়তা পেতে থানাভিত্তিক পুলিশের সাথে যোগাযোগও করা যাবে এই অ্যাপ টি থেকে। অ্যাপটি নিয়ে তাদের কিছু ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথাও জানালেন তারা।

জাওয়াদুল হাসান বলেন, আমরা আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স এবং ইউ আর এল এনালাইসিস এর মাধ্যমে প্রচলিত ভুল ধারণা থেকে মানুষ কে সচেতন করতে পারব।

সেই সাথে করোনার লক্ষনধারী মানুষ থেকে সুস্থ মানুষদের ম্যাপের মাধ্যমে দূরে থাকার নির্দেশনা দিতে পারব। এছাড়াও লকডাউনের সময় যেইসব দোকান খোলা আছে তা ম্যাপে দেখাতে পারব। এছাড়াও এরইমধ্যে ভারতের ব্যাঙ্গালুরুর একটি অ্যাপ কনটেস্টে ফাইনালেও অংশগ্রহন করেছিলাম আমরা। অ্যাপটি ডাউনলোড করা যাবে।

আমারসংবাদ/এমএইচ/জেআই