সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

৫ আশ্বিন ১৪২৭

ই-পেপার

নিজস্ব প্রতিবেদক

ফেব্রুয়ারি ১৪,২০২০, ০৫:১৫

ফেব্রুয়ারি ১৪,২০২০, ১১:১৫

‘মানবিক কারণে খালেদার মুক্তি জরুরি’

দিন দিন বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের অবনতি হচ্ছে। ট্রিটমেন্টের জন্য তাকে বিদেশে পাঠাতে তার পরিবার থেকেই আবেদন জানানো হয়েছে। সরকারের উচিৎ এগুলো নিয়ে রাজনীতি না করে সম্পূর্ণ মানবিক কারণে মুক্তি দেয়া।

শুক্রবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশানে বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের এক বৈঠক শেষে এসব কথা বলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সিনিয়র আইনজীবীদের মধ্যে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়।

লন্ডন থেকে স্কাইপের মাধ্যমে বৈঠকের সভাপতিত্ব করেন-দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। বৈঠকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু এবং খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের মধ্যে অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদীন, অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান, ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন ও ব্যারিস্টার কায়সার কামাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সঙ্গে টেলিফোনে আলাপ প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, উনি (ওবায়দুল কাদের) কি বলেছেন এটা ওনাকে জিজ্ঞাসা করেন, ওনাকে জিজ্ঞেস করলে বেটার হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের কথা পরিষ্কার, ম্যাডামের মুক্তির দাবিটা নিয়ে আমরা আজকে নয়, গত ২ বছর ধরেই কোর্টে যাচ্ছি। আমরা কথা বলছি, রাস্তায় নামছি, চিৎকার করছি। সারা দেশবাসী এই মুহূর্তে ম্যাডামের মুক্তির দাবি করছে।

একই সঙ্গে আজকে তার (খালেদা জিয়া) পরিবারও করছে। কয়েকদিন আগেই তারা (পরিবার) খালেদা জিয়ার অ্যাডভান্স টিট্রমেন্টের জন্য লিখিতভাবে বিএসএমএমইউ‘র ভাইস চ্যান্সলরকে চিঠি দিয়েছেন। এরপর আর বাকি প্রশ্নগুলো সব অবান্তর থাকে, এগুলো আর প্রশ্ন থাকে না।

তিনি বলেন, আমরা আবার ম্যাডামের জামিনের দরখাস্ত করবো। আমরা বিশ্বাস করি, হাইকোর্ট দেশের জনগণের শেষ আশ্রয়স্থল। আশা করছি এবার আবেদন করলে জামিন লাভ করবো।

বৈঠক শেষে খালেদার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘আমরা আবার ম্যাডামের জামিনের আবেদন করব। আশা করি, অন্তত দেশবাসীকে আমাদের হাইকোর্ট বিভাগ এমন একটি ইঙ্গিত দেবেন যে, দেশে বিচার ব্যবস্থা আছে। বিচার ব্যবস্থা না থাকলে খালেদা জিয়াকে আমরা জামিন দিতাম না।’ আগামী সপ্তাহ নাগাদ জামিন আবেদন করা হতে পারে।

আমারসংবাদ/এসটিএমএ