শনিবার ০৬ জুন ২০২০

২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ই-পেপার

নিজস্ব প্রতিবেদক

এপ্রিল ০৬,২০২০, ১১:৫৫

এপ্রিল ০৬,২০২০, ১১:৫৫

১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত পোশাক কারখানা বন্ধ রাখার নির্দেশ

আগামী ১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত পোশাক কারখানা বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সরকারি ছুটির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে পোশাকশিল্প মালিকদের দুই সংগঠন বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ।

সোমবার (০৬ এপ্রিল) রাতে যৌথ বিবৃতিতে এই কথা জানিয়েছে সংগঠন দুটি। এছাড়া আগামী ১৬ই এপ্রিলের মধ্যে শ্রমিকদের মার্চ মাসের বেতন পরিশোধের জন্য মালিকদের প্রতি অনুরোধ করেছে বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ।

বিকেএমইএ সভাপতি একেএম সেলিম ওসমান এমপি এবং বিজিএমইএ সভাপতি ড: রুবানা হক স্বাক্ষরিত যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, যাদের চলমান জরুরি রপ্তানি আদেশ আছে এবং যেসব প্রতিষ্ঠান পিপিই, মাস্ক ইত্যাদি তৈরি করছে তারা প্রয়োজনে খোলা রাখতে পারবে।

তবে সে ক্ষেত্রে স্ব স্ব এসোসিয়েশন (বিজিএমইএ/বিকেএমইএ), কল কারখানা পরিদর্শন অধিদপ্তর এবং শিল্প পুলিশকে অবহিত করতে হবে।

এর আগে গত ২৭শে মার্চ থেকে ৪ঠা এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার আহ্বান জানানো হয়। রোববার ৫ই এপ্রিল থেকে আবারও কারখানা বন্ধের কথা জানায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউসের সভাপতিত্বে সোমবার একটি সভা হয়। বিকেলে বিজিএমইএ ও বিকেএমইএর শীর্ষ নেতারা বৈঠক করেন।

অধিকাংশ পোশাক কারখানা রোববার খোলার কথা ছিল। সে জন্য কাজে যোগ দিতে শনিবার সারাদেশ থেকে রাজধানী ও আশপাশের শিল্পাঞ্চলের অভিমুখে শ্রমিকেরা আসতে থাকেন। তাতে করোনাভাইরাস ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়। বিষয়টি নিয়ে সারা দিন সমালোচনা হয়।

পরে শনিবার রাতে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত কারখানা বন্ধ রাখতে সদস্য কারখানা মালিকদের প্রতি অনুরোধ জানায় বিজিএমইএ। তারপর সদস্য কারখানাগুলোকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেয় বিকেএমইএ।

সংগঠন দুইটির সিদ্ধান্তে বাড়ি থেকে কাজে যোগ দিতে গিয়ে পথে বিপাকে পড়েন শ্রমিকেরা। করোনার ঝুঁকি নিয়েই আবার বাড়ির পথে পা বাড়ান।অবশ্য বিজিএমইএর অনুরোধ ও বিকেএমইএর নির্দেশনায় কাজ হয়নি তেমন।

অনুরোধ ও নির্দেশনা অমান্য করেই করোনার মধ্যে ঝুঁকি নিয়ে সোমবার সাভার, আশুলিয়া, গাজীপুর, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ ও নরসিংদীতে উভয় সংগঠনের ১৭৫ কারখানা উৎপাদন কাজ চালিয়েছে। বস্ত্রকল মালিকদের সংগঠন বিটিএমএর সদস্য ৫৮ টেক্সটাইল মিলও উৎপাদনে ছিল।

আমারসংবাদ/এআই