মঙ্গলবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

১২ ফাল্গুন ১৪২৬

ই-পেপার

বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি

ফেব্রুয়ারি ১৪,২০২০, ০৪:০১

ফেব্রুয়ারি ১৪,২০২০, ১০:০১

স্বামী পরিত্যক্তা নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ, ধর্ষক পলাতক

নাটোরের বাগাতিপাড়ায় বিয়ের প্রলোভনে স্বামী পরিত্যক্তা এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তারেক (২৩) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে বাগাতিপাড়া মডেল থানায় একটি ধর্ষণের অভিযোগ করেছেন বলে জানা যায়।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন থেকে স্বামী পরিত্যক্তা নারীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে একই গ্রামের তারেক। এই সম্পর্কের জেরে কয়েক মাস পূর্বে ওই নারীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে সে। ধর্ষণের ঘটনার পর থেকে বিয়ের কথা বললে সে (তারিক) তালবাহানা করে।

অভিযুক্ত তারিক হোসেন উপজেলার শালাইনগর গ্রামের খবির আলীর ছেলে।

থানা সূত্রে জানা যায়, ধর্ষণের স্বীকার ওই নারী বর্তমানে অসুস্থ অবস্থায় নাটোর সদর হাসপাতালের ভর্তি রয়েছে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি বাগাতিপাড়া মডেল থানায় ওই নারীর মা বাদী হয়ে একটি ধর্ষণের অভিযোগ করলে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা রুজু করা হয়।

ধর্ষণের স্বীকার ওই নারীর বলেন, তারিক তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোর করে ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ফলে বর্তমানে সে চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা। কিন্তু সে (তারিক) তাকে বিয়ে করতে অস্বীকারের সাথে সাথে পেটের বাচ্চাকে নষ্ট করার জন্য বলে। তারিকের এমন তালবাহানা দেখে আমার মা থানায় তার বিরুদ্ধে থানায় ধর্ষণের একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

তিনি আরও বলেন, অভিযোগ করার পর থেকে তাকে ও তার পরিবারকে ঘটনাটি মিমাংশা করতে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে অভিযুক্ত তারেক সহ তার সহযোগীরা।

তিনি দাবি করে বলেন, গত কয়েকদিন আগে তাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে পুঠিয়া একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে গর্ভের সন্তান নষ্ট করতে ইনজেকশন করে তারপর থেকে তিনি বেশী অসুস্থ হয়ে পড়ে। বর্তমানে তিনি নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বাগাতিপাড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল মতিন দৈনিক আমার সংবাদকে আজকে (১৪ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় জানান, ধর্ষণের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। বর্তমানে অভিযুক্ত আসামি তারিক পলাতক রয়েছে।

আমরা আসামিকে আটকের সর্বাত্বক চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। মামলা করায় হুমকি দিচ্ছে এমন অভিযোগ পেলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। থানা পুলিশের পক্ষ থেকে ঘটনাটি খুবই গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হচ্ছে।

আমারসংবাদ/এমআর